সত্য এসেছে এবং মিথ্যা বিলুপ্ত হয়েছে। নিশ্চয় মিথ্যা বিলুপ্ত হওয়ারই ছিল।

দার্শনিক ইবনে সীনার আক্বীদাহ-বিশ্বাস এবং তার ব্যাপারে আলেমদের মতামত

ইবনে সীনা হচ্ছেন, অতিপ্রসিদ্ধ একজন দার্শনিক। ডাক্তারী বিদ্যায় তিনি জগৎবিখ্যাত। তার নাম হচ্ছে, আবূ আলী হুসাইন বিন আব্দুল্লাহ বিন হাসান বিন আলী বিন সীনা বালখী। তিনি ৩৭০ হিজরীতে জন্মগ্রহণ করেন আর মারা যান ৪২৮ হিজরীতে। তাকে আমরা সবাই মুসলিম হিসেবে জানি। অথচ তিনি বাতেনী কারামুতাহ ছিলেন। তিনি নাস্তিক্যবাদী অনেক বিশ্বাসে বিশ্বাসী ছিলেন। তাই তাকে অনেক ইমাম ও আলেম কাফের ও নাস্তিক আখ্যা দিয়েছেন।

 

ইবনে সীনা কাফের ও নাস্তিক এ ব্যাপারে উলামাদের মতামত

শাইখুল ইসলাম ইবনে তাইমিয়্যাহ (রাহি) বলেন:

 

وابن سينا تكلم في أشياء من الإلهيات والنبوات والمعاد والشرائع لم يتكلم فيها سلفه ولا وصلت إليها عقولهم ولا بلغتها علومهم فإنه استفادها من المسلمين وإن كان إنما أخذ عن الملاحدة المنتسبين إلى المسلمين كالإسماعيلية وكان هو وأهل بيته وأتباعهم معروفين عند المسلمين بالإلحاد وأحسن ما يظهرون دين الرفض وهم في الباطن يبطنون الكفر المحض

ইবনে সীনা ইলাহ, নবুওয়াত, পরকাল ও শরী’আত সম্পর্কে এমন সব কথাবার্তা বলেছেন যা তার পূর্বের কোনো সালাফ বলেননি; তাঁদের বিবেক ও জ্ঞান সেদিকে যেতেই পারেনি। তিনি তা মুসলিমদের থেকে গ্রহণ করেন। যদিও তিনি এসব শিখেন ইসমাইলিয়্যাহদের মত নামধারী নাস্তিকদের থেকে। তিনি, তার পরিবার ও তার অনুসারীরা মুসলিমদের নিকট নাস্তিক হিসেবে পরিচিত ছিলেন। তারা বাহিরে রাফেযী শিয়ার ভাব নিতেন আর ভিতরে খালেস কুফরী লালন করতেন। [মাজমুঊল ফাতওয়া, ৯/২৩২-২৩৫]

 

তিনি আরো বলেন:

 

أن ابن سينا أخبر عن نفسه أن أهل بيته وأباه وأخاه كانوا من هؤلاء الملاحدة وأنه إنما اشتغل بالفلسفة بسبب ذلك

ইবনে সীনা নিজেই তার, তার পরিবার, তার পিতা ও তার ভাইদের সম্পর্কে জানিয়েছেন যে, তারা এসব নাস্তিকদের অন্তর্ভুক্ত ছিলেন। তিনি এ কারণে দর্শন শাস্ত্রে ব্যস্ত হয়ে পড়েন। [মাজমুঊল ফাতওয়া, ৯/২৩২-২৩৫]

 

তিনি আরো বলেন:

 

وابن سينا أحدث فلسفة ركبها من كلام سلفه اليونان ومما أخذه من أهل الكلام المبتدعين الجهمية ونحوهم وسلك طريق الملاحدة الإسماعيلية في كثير من أمورهم العلمية والعملية ومزجه بشيء من كلام الصوفية وحقيقته تعود إلى كلام إخوانه الإسماعيلية القرامطة الباطنية فإن أهل بيته كانوا من الإسماعيلية أتباع الحاكم الذي كان بمصر وكانوا في زمنه ودينهم دين أصحاب “رسائل إخوان الصفا” وأمثالهم من أئمة منافقي الأمم الذين ليسوا مسلمين ولا يهود ولا نصارى

ইবনে সীনা জাহমিয়া ও তাদের মত বিদ’আতপন্থী আহলে কালামদের থেকে কিছু গ্রহণ করে ও তার পূর্ববর্তী ইউনানিদের থেকে কিছু নিয়ে সবকে জোড়া দিয়ে এক নতুন দর্শন আবিষ্কার করেন। তিনি ইলমী, আমলী অনেক ক্ষেত্রে নাস্তিক ইসমাইলিয়্যাহদের তরীকায় চলেন। তার সঙ্গে আরো মিশ্রণ করেন সূফীদের কথাবার্তা। যার বাস্তবতা হচ্ছে, তার ইসমাইলিয়্যাহ কারামুতাহ বাতেনিয়্যাহ ভাইদের মতাদর্শ। তার পরিবার ছিল মিসরে অবস্থানকারী হাকেমের অনুসারী ইসমাইলিয়্যাহদের অন্তর্ভুক্ত। তারা তার যুগের ছিল। তাদের দ্বীন হচ্ছে, “রাসায়েল ইখওয়ানুস সফা’র” অনুসারীদের ও তাদের মত মুনাফিক সর্দারদের দ্বীন; যারা মুসলিম নয়, ইহুদী নয়, খ্রিষ্টান নয়। [ঐ, ১১/৫৭১]

 

ইমাম যাহাবী (রাহি) তার সম্পর্কে বলেন:

 

وله كتاب الشفاء وغيره وأشياء لاتحتمل ,وقد كفره الغزالي في كتاب المنقذ من الضلال وكفر الفارابي

তার “আশ-শিফা” সহ অন্যান্য কিতাব এবং এমন কিছু বিষয় রয়েছে যা সহ্য করার মত না। তাকে গাযালী “আল-মুনকিয মিলায যলাল” কিতাবে কাফের বলেছেন এবং ফারাবীকেও কাফের বলেছেন। [সীয়ারু আ’লামিন নুবালা, ১৭/৫৩৫]

 

ইবনুল কাইয়িম (রাহি) তার সম্পর্কে বলেন:

 

وكان ابن سينا كما أخبر عن نفسه قال: أنا وأبي من أهل دعوة الحاكم فكان من القرامطة الباطنية الذين لا يؤمنون بمبدأ ولا معاد ولا رب ولا رسول مبعوث جاء من عند الله تعالى

ইবনে সীনা তেমনটি ছিলেন যেমনটি তিনি তার সম্পর্কে বলেছেন, তিনি বলেন: আমি ও আমার পিতা হাকেমের আন্দোলনের অনুসারী ছিলাম। তিনি কারামুতাহ বাতেনিয়্যাহর অন্তর্গত ছিলেন, যারা (সৃষ্টির) সূচনা, পরকাল, রব ও আল্লাহর প্রেরিত রাসূল-কে বিশ্বাস করে না। [ইগাসাতুল লাহফান, ২/১৯৫]

 

তিনি তাকে নাস্তিকদের নেতা বলে আখ্যায়িত করেছেন। [ইগাসাতুল লাহফান, ২/১৯৬]

 

ইবনুস স্বলাহ (রাহি) তার সম্পর্কে বলেন:

 

كان شيطاناً من شياطين الإنس

তিনি মানুষরূপী শয়তান ছিলেন। [ফাতওয়া ইবনিস স্বলাহ, ২/২০৯]

 

আনওয়ার শাহ কাশমীরী (রাহি) তার সম্পর্কে বলেন:

 

ابن سينا الملحد الزنديق القرمطي غدا مدى شرك الردى وشريطة الشيطان

নাস্তিক, অবিশ্বাসী, কুরমুতী ইবনে সীনা চরম পর্যায়ের শিরকে নিমজ্জিত ছিলেন এবং শয়তানের ফিতা (অধীনে) ছিলেন। [ফায়জুল বারী, ১/১৬৬]

 

ইবনে হাজার আসকালানী (রাহি) পূর্বে উল্লেখিত ইমাম যাহাবীর কথা উল্লেখ করে বলেন:

 

لا رضي الله عنه

আল্লাহ্‌ যেন তার উপর সন্তুষ্ট না হন।

 

ইবনে কাসীর (রাহি) তার সম্পর্কে বলেন:

 

قد حصر الغزالي كلامه في “مقاصد الفلاسفة” ثم رد عليه في “تهافت الفلاسفة” في عشرين مجلساً له، كفره في ثلاث منها، هي: قوله بقدم العالم وعدم المعاد الجسماني وأن الله لا يعلم الجزئيات وبدَّعه في البواقي ويقال أنه تاب عند الموت والله أعلم

গাযালী তার মতবাদকে “মাকাসিদুল ফালাসাফাহ” গ্রন্থে একত্রিত করেছেন। তারপর তিনি ২০টি আলোচনায় “তাহাফুতুল ফালাসাফাহ”-তে তার জবাব দিয়েছেন। তিন কারণে তিনি তাকে কাফের বলেছেন। তা হল: তার মতে বিশ্বজগত সৃষ্টি নয়, শারীরিকভাবে পরকাল হবে না এবং আল্লাহ শাখাগত বিষয় সমূহ জানেন না। আর অন্যান্য কারণে তিনি তাকে বিদ’আতী বলেছেন। বলা হয়ে থাকে, তিনি নাকি মরার সময় তাওবাহ করেছিলেন। আল্লাহ ভালো জানেন। [আল-বিদায়াহ ওয়ান নিহায়াহ, ১২/৪৩]

 

ইবনু ইমাদ (রাহি) তার সম্পর্কে বলেন:

 

أكثر العلماء على كفره وزندقته حتى قال الإمام الغزالي في كتابه “المنقذ من الضلال” : لا شك في كفرهما أي الفارابي وابن سينا

অধিকাংশ উলামা তাকে কাফের ও নাস্তিক বলেছেন। এমনকি ইমাম গাযালী তার কিতাব “আল-মুনকিয মিনায যলাল” কিতাবে বলেছেন, উভয়ের অর্থাৎ ফারাবী ও ইবনে সীনার কুফরীর ব্যাপারে সন্দেহ নেই। [সাযারাতুয যাহাব, ২/৩৫৩]

 

এছাড়া আরো অনেক আলেম তাকে কাফের ও নাস্তিক আখ্যা দিয়েছেন।

 

ইবনে সীনার কিছু কুফরী ও নাস্তিকী মতবাদ

 

০১. আল্লাহর ক্ষমতা, ইচ্ছা, হিকমত ও চাওয়া বলতে কিছুই নেই।

০২. মস্তিষ্কের বাইরে আল্লাহর অস্তিত্ব নেই। [মাজমুউল ফাতওয়া, ৬/৫১৬-৫১৭]

০৩. নবীগণ পরকাল, জান্নাত-জাহান্নাম, ফেরেশতা ও গায়েবের বিষয়ে যা কিছু বলেছেন, সে-সবের কোনো বাস্তবতা নেই। [দারউ তা’আরুযিল আকল ওয়ান নাকল, ১/৯]

০৪. নবীগণের মু’জিযা হচ্ছে, আত্মিক শক্তি। [সুফদিয়াহ, ১/২]

০৫. নবীগণের ওহী হচ্ছে, নিজের অন্তরের ফয়েয। অর্থাৎ তাদের অন্তর অত্যন্ত স্বচ্ছ হওয়ার কারণে অন্তরে কিছু গেঁথে যেত।

০৬. সৃষ্টিজগৎ অবিনশ্বর। [ইগাসাতুল লাহফান, ২/১০৩১]

০৭. শারীরিকভাবে পরকালে পুনরুত্থান হবে না। [ইগাসাতুল লাহফান, ২/১০৩১]

 

 

সংকলকঃ আব্দুল্লাহ মাহমূদ

© Shottanneshi – সত্যান্বেষী কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত।

প্রবন্ধটি পড়া হলে, শেয়ার করতে ভুলবেন না।

(Visited 93 times, 1 visits today)

Follow me!

Related Post

banner ad
Powered by WordPress | Designed by Shottanneshi Research Team